৫০ হাজার থেকে ৬০ হাজারে টাকার মধ্যে কিছু সেরা ল্যাপটপ


কিছুদিন আগে আমাদের ATC Official Group ও Android ToTo Company পেজে পোস্ট করে জানতে চাওয়া হয়েছিলো ৫০ হাজারের আশেপাশের ল্যাপটপে কি কি কনফিগ আশা করেন। উত্তরে আপনাদের অনেকেই লজিক্যাল উত্তর দিয়েছেন আবার অনেকেই ডিমান্ড করেছেন আকাশছোঁয়া। তাই আগে সবাইকে ক্লিয়ার করি ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা বাজেটের ল্যাপটপে কি কি কনফিগ পেতে পারেন। আপনাদের সুবিধার্থে এই কনফিগকে দুই ভাগে ভাগ করি।

৫০ হাজার থেকে ৫৫ হাজারঃ

এই বাজেটের ল্যাপটপে আপনি পেতে পারেন ইন্টেলের core i5 8th gen প্রসেসর তার সাথে ৪ থেকে ৮ জিবি র‍্যাম, মোটামুটি সুন্দর ডিজাইন এবং বেটার বিল্ড কোয়ালিটি। এই বাজেটে আপনি ডেডিকেটেড জিপিউ এর আশা করতেই পারেন। বাজারে এই রেঞ্জের প্রায় সব ল্যাপটপেই দেয়া থাকে ২ জিবি ডেডিকেটেড জিপিউ। স্টোরেজ হিসেবে ১ টেরাবাইটের হার্ডড্রাইভ সাথে একটি m.2 এসএসডি স্লট। তবে স্লটটা আশা করা এখন সময়ের দাবী।

৫৫ হাজার থেকে ৬০ হাজারঃ

৫৫ থেকে ৬০ হাজার বাজেটে প্রসেসর হিসেবে আপনি পাচ্ছেন ৮ম জেনারেশন এর ইন্টেলের কোর আই ৫ অথবা এএমডির রাইজেন ৫। র‍্যাম হিসেবে ৮ জিবি পাওয়াটা একটা দাবী এই বাজেটে বলতে গেলে। সাথে আরেকটি ফাকা স্লট দেয় অধিকাংশ ম্যানুফ্যাকচারার যাতে আপনি একে আপগ্রেড করে নিতে পারেন। ডিসপ্লে হিসেবে পাচ্ছেন ১৫.৬ ইঞ্চির এফএইচডি বা আইপিএস প্যানেল। তবে পাচ্ছেন না কোন টাচ সুবিধা। এই রেঞ্জের প্রাই সবাই অফার করছে এনভিডিয়ার এমএক্স ১৩০ বা ১৫০ বা এএমডির রেডিয়ন ৫৪০ এর ২জিবি ভ্যারিয়েন্ট। স্টোরেজে পাচ্ছেন ১ টেরাবাইটের হার্ড ড্রাইভ সাথে একটি m.2 এসেসডি স্লট।

আশাকরি আপনাদের বুঝাতে পেরেছি এই বাজেটে আপনার চাহিদার লিমিট। এবার কথা বলি কিছু প্রতিযোগীদের নিয়ে যারা এই দুই বাজেট রেঞ্জে বাজার কাঁপাচ্ছে। তাদের ডিটেইল কনফিগ নিয়ে বক বক করবো না, কেননা এতক্ষণ আপনাদের জানা হয়ে গেছে আপনি কি কি পাচ্ছেন আপনার সাধের টাকায়।

বাজেট যখন ৫০ হাজার থেকে ৫৫ হাজারঃ


Lenovo Ideapad 320: লেনোভোর এই ল্যাপটপটিকে আমি এই বাজেটে সব থেকে এগিয়ে রাখবো। কেননা আপনি এতে পাচ্ছেন ৮ জিবি ডিডিআর ৪ র‍্যাম যা এই বাজেটের অন্য ল্যাপটপগুলোতে দেখাও যায় না। ডিজাইন বিল্ড কোয়ালিটি নিয়ে আমার কোন অভিযোগ নেই। তবে সব থেকে বড় অভিযোগ হলো এতে কোন m.2 স্লট না থাকাটা। ২০১৮ এর শেষভাগে বাজারে আসলেও এতে মিসিং m.2 স্লট। আমার মতে ডিভিডি ড্রাইভ টা বাদ দিয়ে যদি m.2 স্লট দিতো তাহলে একে আমি বাজেট বেস্ট বলতাম। বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ৫৩ হাজারের আশে পাশে।

ASUS S530uf : বাজেট যদি ৫০ হাজারের নিচে হয় আর আপনার চাই দেখতে স্টাইলিশ সাথে ফিউচার আপগ্রেডিং ফিচার তাহলে আপনার জন্য আসুসের S530uf মডেলটি। দেখতে স্লীম এবং প্রিমিয়াম সাথে ন্যারো বেজেল। একটু ডাউনগ্রেডে এসে থাকছে কোর আই ৩ প্রসেসর তার সাথে ৪ জিবি র‍্যাম ও আরেকটি ফাকা স্লট। লুক দেখে প্রেমে পড়তে বাধ্য আপনি। এক্সট্রা ফিচার হিসেবে আছে ফিংগারপ্রিন্ট স্ক্যানার, ব্যাকলিট কীবোর্ড। দেয়া আছে m.2 স্লট যাতে আপনি একটি এসএসডি লাগিয়ে ঊড়তে পারেন আকাশে। এই ল্যাপটপের অন্যতম আরেক ফিচার হলো এর “আরগোলিফট হিঞ্জ” খোলার সমর এটি ৩.৫ ডিগ্রী উপরে উঠে যা সাহায্য করবে আপনার কুলিং এ। বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ৫০ হাজারের আশেপাশে।

HP 15-DA0021TX : বাজেট ৫০ হাজার বা তার খানিকটা নিচে তাদের জন্য এটি বেস্ট চয়েস বলা চলে। থাকছে ডেডিকেটেড জিপিউ আর সাথে কোর আই ৫ এর ৮ম জেনারেশন। লুক টা তেমন ভালো না লাগলেও ভালোই পারফমেন্স পাবেন আপনার বাজেট অনুসারে। পাওয়া যাচ্ছে ৫০ হাজারের কাছাকাছিতে।

Asus X507UF: এই বাজেটে আসুস এর অন্যতম সেরা ল্যাপটপ। সুন্দর ডিজাইন আর তার সাথে ওভারঅল পারফর্মেন্সে একে রাখা হচ্ছে বাজারে অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে। তবে খারাপ লেগেছে ৮ জিবি র‍্যাম না দেয়াটা।পাওয়া যাচ্ছে ৫১ হাজারের আশেপাশে।

এই ছিলো ৫০ হাজার বা তার আশে পাশের কিছু পছন্দের ল্যাপটপ। এছাড়াও আপনি চাইলে HP PROBOOK 440 G5,Asus X542UF,HP PAVILION 15-cu0011TX,Dell Inspiron 14-3476 এই মডেলগুলো দেখতে পারেন। এদের কোন বিস্তর আলোচনা করলাম না, কেননা কোন নতুন ফিচার পাওয়া যায়নি।

এবার আসি ৫৫ হাজার টাকা থেকে ৬০ হাজার বাজেটে। উপরে আগেই বলে দিয়েছি এই বাজেটে কি কি পাচ্ছেন। এবার চলুন দেখে নেই এই বাজেটের কিছু বাজার কাঁপানো ল্যাপটপ।


Lenovo IP330(Ryzen 5) : বর্তমানে দেশের বাজারে পাওয়া একমাত্র রাইজেন ৫ সাপোর্টেড ল্যাপটপ এটি। দেখতে স্লিম এবং অনেকটা প্রিমিয়াম ম্যাট ব্লু ফিনিশিং। দেখতে সুন্দর হলেও কিছু ড্রব্যাক থেকেই যায়। যেমন- থার্মাল থ্রটলিং,ব্যাকলিট কিবোর্ড না থাকা, আরেকটু বেটার ব্যাটারী তার সাথে ন্যারো ব্যাজেল এবং আরেকটু ভালো মানের ডিসপ্লে প্যানেল দিলে বাজারে আরো বেশি সাড়া ফেলতো বলে আমি মনে করি।

ACER ASPIRE A515-51G : এসারের এই মডেলটি আগে ইণ্টেলের ৭ম জেনারেশন এ পাওয়া যেত। ২০১৮ এর দিকে তারা এর আপগ্রেডেড ৮ম জেনারেশন বাজারে নিয়ে আসে। ২ টেরাবাইট হার্ডড্রাইভ, ব্যাকলিট কিবোর্ড এর পাশাপাশি মোটামুটি ভালো ডিসপ্লে আর সাথে আপগ্রেডিবিলিটি অপশন একে অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে বাজারে টিকিয়ে রেখেছে। এসারের চিরচেনা হিটিং ইস্যুর খানিকটা দেখা পাবেন এতে তবে এর চওড়া বেজেল এবং ওজন ছাড়া বাকি সব কিছুই ভালো ছিলো।

Lenovo IP330(intel i5) : লেনোভোর এই মডেলটির অন্যতম ফিচার এর ৪ জিবি এএমডি ৫৩০ জিপিউ। বাকি সব কিছুই আগে আলোচনা করা হয়েছে। ড্রব্যাক গুলো আপনাদের এতক্ষণে জানিয়ে ফেলেছি।

HP Pavilion 15-cc155TX: ৬০ হাজার বাজেটে অন্যতম সেরা ল্যাপটপ হিসেবে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। ৪জিবি ৯৪০ এমএক্স এর জিপিউ। এর বিস্তারিত নিয়ে একটি বিস্তারিত রিভিউ লেখা আছে আমাদের সাইটে। ড্রব্যাক হিসেবে বলবো লো পাওয়ার জিপিউ আর ওয়াইড ব্যাজেল আর কুলিং এর আংশিক দুর্বলতা।

Dell Inspiron 5570: ৫৮ হাজারের আসেপাশের বাটে অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী এই ল্যাপটপটি। এসারের ল্যাপটপটির মতো এতেও থাকছে ২ টেরাবাইটের স্টোরেজ আর ২ জিবি ডেডিকেটেড জিপিউ।ল্যাপটপ এর জিপিউ এর ক্ষেত্রে আমি এনভিডিয়ার জিপিউকে এগিয়ে রাখবো কেননা তারা এএমডির তুলনায় কম পাওয়ার নেয়। ল্যাপটপের ক্ষেত্রে যতটা কম পাওয়ার ততটা বেশি ব্যাকাপ এই থিওরি অনুসারে ডেল চাইলে তাদের ব্যাটারী বাড়াতে পারতো বলে আমি মনে করি। সাদামাটা ডিজাইন আর মোটা বেজেল ২০১৯ এ এসে মানা যায়না। আশা করা যায় খুব শীঘ্রই তারা এর আপগ্রেড নিয়ে আসবে বাজারে।